bn Bengali
bn Bengalien Englishxh Xhosa
আন্তর্জাতিক

মৃত্যুর পরেও দিতে হলো লাইন!

[ad_1]

প্রতিদিন হৃদয়বিদারক ঘটনার জন্ম দিচ্ছে করোনায় ধরাশায়ী ভারত। মাঠ কিংবা পার্ক যেখানে এখন অস্থায়ী শ্মশান।

অ্যাম্বুলেন্সে গাদাগাদি করে তোলা হচ্ছে লাশ। অক্সিজেনের তীব্র সংকটে যাচ্ছে প্রাণ। সংক্রমণ-মৃত্যুতে প্রতিদিন দেশটি গড়ছে বিশ্বরেকর্ড। মহরাষ্ট্রের পর এখন ভয়াবহ পরিস্থিতি দিল্লির।

জানা যায়, চিকিৎসা পেতে প্রথমে হাসপাতালের বাইরে লাইন দিতে হয়েছিল। মৃত্যুর সঙ্গে যখন পাঞ্জা লড়ছেন, তখন হাসপাতালের বাইরে অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে লাইনে দাঁড়িয়েছিলেন তাদের পরিজনরা। মৃত্যুর পরেও সেই লাইন থেকে নিস্তার পেলেন না দিল্লিতে করোনার কবলে প্রাণ হারানোরা। চিতায় ওঠার জন্যও মাচায় শুয়ে থাকা অবস্থাতেই শ্মশানে লাইন দিতে হলো তাদের। অতিমারিতে বিধ্বস্ত রাজধানীতে এবার এমনই দৃশ্যই সামনে এলো।

৪০ ডিগ্রির উপরে হাঁসফাঁস করা গরমে দিল্লির সুভাষনগর শ্মশানে টিনের চালের নিচে সারি সারি চিতা জ্বলছে। মিহি ছাই উড়ে এসে পড়ছে পাশের চাতালেও। আর খাঁ খাঁ রোদে তেতে ওঠা সেই চাতাল ধরেই এগিয়েছে মরদেহের সর্পিল রেখা। এক ঝলক তাকালেই মাচার সঙ্গে দড়ি দিয়ে বেঁধে রাখা ১৫-২০টি দেহ চোখে পড়তে বাধ্য।  

পাশের উঁচু বাঁধানো জায়গায় ঘি এবং প্রয়োজনীয় সামগ্রী নিয়ে বসে রয়েছেন পরিজনরা। এক দু’ঘণ্টা নয়, ১৬ থেকে ২০ ঘণ্টা বসে রয়েছেন কেউ কেউ। যে প্লাস্টিকের থলিতে মরদেহ মোড়া রয়েছে, তার উপর নাম, নম্বর লেখা থাকায় হাতছাড়া হওয়ার ভয় নেই। তাই একটানা বসে না থেকে বাইরে থেকে মাঝেমধ্যে পোড়া দেহের গন্ধ এবং ধোঁয়া থেকে বেরিয়ে আসছেন অনেকে।

কিন্তু বাইরে বেরিয়েও যে প্রাণভরে শ্বাস নেবেন তার উপায় নেই। সেখানেও মরদেহ নিয়ে সারি সারি অ্যাম্বুলেন্স ও গাড়ি দাঁড়িয়ে রয়েছে। তখনও ধাক্কা সামলে উঠতে না পারা কয়েকজন ফোঁপাচ্ছেন। কোনখানে দাঁড়াবেন বুঝতে পারছেন না। তাতে বাকিরাও রীতিমতো অপ্রস্তুত।

কোনটা নাভি আর কোনটা বুক, বুঝে উঠতে পারছিলেন না। তাকে ধমক লাগালেন অন্য এক শ্মশানকর্মী। তাতে ফুঁপিয়ে উঠলেন ওই নারী। কান্না চাপতে চাপতে বললেন, ‘বাবার মুখটা পর্যন্ত দেখতে পাইনি। ’

দিল্লি সরকারের হিসাব অনুযায়ী, মাস দুয়েক আগেও পরিস্থিতি যথেষ্ট নিয়ন্ত্রণে ছিল। ৫৭ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়। মার্চে সংখ্যাটা বেড়ে হয় ১১৭। কিন্তু এপ্রিল মাস এখনও শেষ হয়নি, তাতেই কোভিডে আক্রান্ত হয়ে ৩ হাজার ৬০১ রোগী মারা গেছেন। এর মধ্যে গত ৭ দিনেই মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ২৬৭ জনের। যদিও সরকারি পরিসংখ্যান নিয়েও গরমিলের অভিযোগ উঠে আসছে।

সুভাষনগর শ্মশানে কোভিডে মারা যাওয়া বাবার দেহ নিয়ে গিয়েছিলেন বছর চল্লিশের মনমীত সিংহ। সংবাদমাধ্যমে তিনি জানান, অ্যাম্বুলেন্স, গাড়ির ভিড় কাটিয়ে শ্মশানে ঢুকতে যাবেন, তার আগেই রাস্তা আটকান এক কর্মী। জানিয়ে দেন, আর দেহ নেওয়া যাবে না। কারণ এত দেহ লাইনে রয়েছে যে, সব ক’টি দেহ দাহ করার জায়গা এবং কাঠ নেই। আর সিএনজি চুল্লিতে একসঙ্গে দু’টোর বেশি দেহ করা যায় না। তাতেও একেকটি দেহের পিছনে কমপক্ষে ৯০ মিনিট সময় লাগবে। ইতোমধ্যেই লাইনে ২৪টি দেহ রয়েছে। তাই অন্য কোথাও যেতে হবে তাকে।

তবে শুধু সুভাষনগর নয়, দিল্লির প্রত্যেক শ্মশানেরই একই অবস্থা বলে অভিযোগ। তাতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামাল দেওয়া নিয়ে কেন্দ্রের পাশাপাশি অরবিন্দ কেজরিওয়াল সরকারের প্রস্তুতি নিয়েও প্রশ্ন উঠছে। যদিও স্বাস্থ্যক্ষেত্রে বিপর্যয়ের কথা তিনি মেনে নিয়েছেন।  

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

বাংলাদেশ সময়: ১৯৩৩ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৮, ২০২১
এএ



[ad_2]
Source by [author_name]

Mark Abrar

23 years old Bangladeshi news publisher. owner of teamdisobey.com. Do not copy my content without my valid written permission. E-mail :- clonecdi0@gmail.com

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
error: Khankirchwlw ki shawwa copy chudaiba?